বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ৯ বৈশাখ ১৪২৮

শফিকুল ইসলাম, রৌমারী (কুড়িগ্রাম)

  ০৮ এপ্রিল ২০২১, ১৮:০৭

চিলামারীতে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ

চিলামারীতে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ
গোলাম হাবিব মহিলা ডিগ্রি কলেজ

কুড়িগ্রামের চিলামারী উপজেলার গোলাম হাবিব মহিলা ডিগ্রি কলেজে এনটিআরসিএ কর্তৃক সুপারিশপ্রাপ্ত প্রভাষক পদে যোগদানে বাধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে অধ্যক্ষ জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে। এর প্রতিকার চেয়ে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) চেয়ারম্যান ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এবং সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) বরাবর অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন সুপারিশপ্রাপ্ত প্রার্থী উম্মেহানি।

প্রাপ্ত তথ্য সুত্রে জানা গেছে, ২০২১ খ্রিষ্টাব্দের ১৬ ফেব্রæয়ারি প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী বাংলা বিষয়ে প্রভাষক পদে নিয়োগের সুপারিশ পেয়েও চিলমারীতে অবস্থিত গোলাম হাবিব মহিলা ডিগ্রি কলেজে যোগদান করতে পারেননি নিবন্ধিত ও সুপারিশপ্রাপ্ত প্রার্থী মোছা. উম্মেহানি। এর প্রতিকার চেয়ে তিনি বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) চেয়ারম্যান বরাবর অভিযোগ দাখিল করেন।

অভিযোগে জানাগেছে, গত ১৬ ফেব্রæয়ারিতে কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলাধীন গোলাম হাবিব মহিলা ডিগ্রি কলেজে বাংলা বিভাগে উম্মেহানি নামের প্রার্থীকে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) এর মাধ্যমে প্রতিস্থাপিত করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে এনটিআরসিএ কর্তৃক নির্ধারিত সময়ে নিয়োগ না দিয়ে অতিবাহিত করেন। এখনও সেই সুপারিশপ্রাপ্ত প্রভাষক উম্মেহানিকে যোগদান করতে দেয়নি অধ্যক্ষ জাকির হোসেন।

সুপারিশকৃত প্রার্থী উম্মেহানি জানান, যোগ্যতা অনুসারে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েও কলেজে যোগদান করতে পারিনি। যোগদান নিশ্চিত করতে শিক্ষামন্ত্রী ও এনটিআরসিএ চেযারম্যানের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।

অভিযোগ প্রসঙ্গে গোলাম হাবিব মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. জাকির হোসেন বলেন, কলেজ ওয়েবসাইটে এনটিআরসিএ কর্তৃক চিঠি না আসায় তাকে যোগদান করতে দেয়া হয়নি। চিঠি পেলে যোগদান করতে দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

যোগদানের বিষয় জানতে চাইলে গোলাম হাবিব মহিলা ডিগ্রি কলেজের সভাপতি ও সাবেক এমপি গোলাম হাবিব বলেন, যোগদানের বিষয় আমার কিছুই জানা নেই। জেনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

চিলমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ্ জানান, অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি খোঁজখবর নিচ্ছি। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (ডিইও) মো. ছামছুল আলম জানান, বিষয়টি তদন্ত করার জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে বলা হয়েছে। তদন্তের প্রতিবেদন পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গোলাম হাবিব মহিলা ডিগ্রি কলেজ,অধ্যক্ষে
আরও খবর
  • সর্বশেষ
  • আলোচিত